মেনু নির্বাচন করুন

ইউডিসি

ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার ( ইউডিসি) -ডিজিটাল বাংলাদেশ সোপান

ইউডিসি (ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার কি): অবাধ তথ্য প্রবাহ জনগণের ক্ষমতায়নের অন্যতম পূর্বশর্ত। বিশেষ করে অনগ্রসরজনগনের মাঝে তথ্য প্রবাহ নিশ্চত করার মাধ্যমে তাদের জীবনযাত্রার মানইতিবাচক পরিবর্তন আনয়ন সম্ভব। তৃণমূল পর্যায়ে সকলের দোরগোড়ায় তথ্য ও সেবাপৌঁছে দিয়ে জনগনের ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করার জন্য স্থানীয় সরকার বিভাগ ওমাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একসেস টু ইনফরমেশন প্রোগ্রামের সহযোগিতায়ইউনিয়ন পর্যায়ে ইউনিয়ন তথ্য ও সেবা কেন্দ্র (ইউআইএসসি) স্থাপনের উদ্যোগনেওয়া হয়েছে। ইউনিয়ন তথ্য ও সেবা কেন্দ্র হচ্ছে ডিজিটাল বাংলাদেশ- রূপকল্প২০২১ বাসত্মবায়নে এমন একটি অত্যাধুনিক তথ্য সেন্টার (টেলিসেন্টার) যারমাধ্যমে তৃণমূল পর্যায়ের মানুষের দোড়গোড়ায় সহজে সুলভে ও দ্রম্নত তথ্য ওসেবা পৌঁছানো সম্ভব।

 

ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার এর উদ্যোক্তা/পরিচালকঃপ্রতিটিইউআইএসসিতে দু’জন (একজন পুরম্নষ ও একজন মহিলা) প্রশিক্ষিত/দক্ষ/উদ্যোগীউদ্যোক্তা থাকবেন, যাদের তথ্য ও সেবা সন্ধান এবং তা প্রদানে তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তির ব্যবহার সম্পর্কে সম্যক ধারণা ও যথাযথ জ্ঞান থাকবে। কুমিলস্নাজেলার ১৬টি উপজেলার ১৭৮ টি ইউনিয়নে ইতোমধ্যে ডেস্কটপ/ল্যাপটপ কম্পিউটার, স্ক্যানার, ওয়েব ক্যাম, মডেম, প্রিন্টারসহ আনুষঙ্গিক যন্ত্রপাতি সংগ্রহ করাহয়েছে। প্রতিটি ইউনিয়ন তথ্য সেবা কেন্দ্রের জন্য দুইজন করে শিক্ষিতযুবক/যুব মহিলা নির্বাচন করে তাদেরকে জেলা পর্যায়ে ১০ (দশ) দিনের নিবিড়প্রশিক্ষণের মাধ্যমে উদ্যোক্ত হিসেবে গড়ে তোলা হচ্ছে।

ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার ব্যবস্থাপনাঃইউআইএসসিপরিচালনার জন্য ৭-৯ সদস্যের পরিচালনা কমিটি থাকবে। ইউনিয়ন পরিষদেরচেয়ারম্যান পদাধিকার বলে এই কমিটির প্রধান হিসাবে দায়িত্ব পালন করবেন। এইকমিটির মেয়াদ ০২ (দুই) বছর।

ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার ও সেবার তালিকা এবং মূল্যঃইউআইএসসির তথ্যভান্ডারে তথ্য ও সেবা থাকবে দু’ভাবে- অফলাইন ও অনলাইনে।তথ্যভান্ডারে তথ্য ও সেবা সাজানো থাকবে এনিমেশন, ভিডিও, অডিও এবং টেক্সট-এই চার ফরমেটে।

ইন্টারনেটের মাধ্যমে তথ্য (অনলাইন)ঃইউআইএসসিতে ইন্টারনেট সংযোগ থাকবে যার মাধ্যমে ইউনিয়নের যে কোন ব্যক্তিসারা পৃথিবীর সঙ্গে যোগযোগ স্থাপন করতে সক্ষম হবেন। দেশী ও বিদেশী বিভিন্নওয়েব সাইট থেকে প্রয়োজন অনুযায়ী যে কোন তথ্য খুঁজে পাওয়া সম্ভব হবে।

অফলাইন তথ্যভান্ডারঃইন্টারনেটেরবাইরে এক বিশাল তথ্যভান্ডার থাকবে ইউআইএসসিতে। এই (অফলাইন) তথ্যভান্ডারেথাকবে থাকবে জীবিকা ভিত্তিক বিভিন্ন তথ্য সেবা; যেমন- কৃষি, স্বাস্থ্য, শিক্ষা, আইন ও মানবাধিকার, কর্মসংস্থান, বাজার, বিভিন্ন সরকারী ফরমপ্রভৃতি।

বাণিজ্যিক সেবা (১)ঃইউআইএসসিতে সুলভ মূল্যে বাণিজ্যিক সেবা পাওয়া যাবে; যেমন-ই-মেইল পাঠানো, ইন্টারনেট ব্রাউজিং করা, কম্পিউটার কম্পোজ করা, প্রিন্টিং করা, রঙ্গিন ছবিতোলা, স্ক্যানিং করা, মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টর ভাড়া নেওয়া প্রভৃতি।

বাণিজ্যিক সেবা (২)ঃইউআইএসসিতে সুলভ মূল্যে কম্পিউটার প্রশিক্ষণ এবং বিভিন্ন দক্ষতামূলকপ্রশিক্ষণের ব্যবস্থা থাকবে। দক্ষতা বৃদ্ধিমূলক প্রশিক্ষণ হবে সহজ, সুলভ ওস্থানীয় প্রযুক্তি ব্যবহার করে বিভিন্ন আয় বৃদ্ধিমূলক উদ্যোগের ওপর; যেমনবিভিন্ন খাদ্যদ্রব্য তৈরী, শিল্প উপকরণ তৈরী (যেমন মোমবাতি), টেইলারিং, বৈদ্যুতিক উপকরণ মেরামত, জৈব সার উৎপাদন প্রভৃতি।

পরামর্শ সেবাঃইউআইএসসি থেকে যাতে করে সরকারি কর্মকর্তাদের মাধ্যমে নিয়মিত পরামর্শ সেবা(যেমন কৃষি, স্বাস্থ্য প্রবৃতি বিষয়ে) পাওয়া যায় তা নিশ্চিত করবে ইউনিয়নপরিষদ। পরামর্শ সেবার মধ্যে থাকবে মাটি পরীক্ষা সার ও কীটনাশক প্রয়োগ, মাছচাষ, স্বাস্থ্য, ভূমি রেজিস্ট্রেশন, আইন বিষয়ক পরামর্শ প্রভৃতি।

তথ্য ও সেবার মূল্যঃইউআইএসসিতে অফলাইন তথ্যভান্ডারের সকল তথ্য বিনামূল্যে সরবরাহ করা হবে। তবেঅফলাইনের কোন তথ্য ও সেবা টেক্সট আকারে পিন্ট করে নিতে হলে তার জন্যেই্উআইএসসি কর্তৃক নির্ধারিত মূল্য পরিশোধ করতে হবে। অনলাইন ভিত্তিক সকলতথ্য ও সেবা মূল্য পরিশোধ করে সংগ্রহ করতে হবে। সকল বাণিজ্যিক সেবাইউআইএসসি কর্তৃক নির্ধারিত মূল্য পরিশোধ করে সংগ্রহ করতে হবে। তবেসরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তাদের পরামর্শ সেবা বিনামূল্যে পাওয়া যাবে।